মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:২৭ অপরাহ্ন

খবরের শিরোনাম :
বিএনপি’র বিভাগীয় সমাবেশের দু’দিন আগেই রংপুরে পরিবহন ধর্মঘটের ঘোষনা মটর মালিক সমিতি। ধর্মঘট উপেক্ষা করে রংপুরে বিভাগীয় সমাবেশ সফল করার ঘোষনা বিএনপি’র, সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন ব্যবসার পরিবেশ দিয়েছি, আপনারা দেশের কথা ভাবুন— ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ প্রার্থীকে হারিয়ে জাপা নেতা জয়ী হারাগাছে মাদ্রাসার কাজ বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ বহিষ্কৃত সেনা সদস্যের বিরুদ্ধে। সমাধান দিলো পুলিশ, হরিজন সেই কিশোরকে মিষ্টি খাওয়ানো হলো রংপুর সিটি নির্বাচনে মোস্তফাকে জাপার মেয়র প্রার্থী ঘোষণা রংপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র আব্দুর রউফ মানিককে জাপা থেকে অব্যাহতি পছন্দের ছেলেকে বিয়ে করায়, পরিবারের হয়রানি থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন দম্পতি পাগলাপীর বাইক রাইডার্স এর মাধ্যমে নিরাপদ বৃদ্ধাশ্রমে খাবার বিতরণ।
দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশের মামলায় ৩ সাংবাদিকের জামিন

দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশের মামলায় ৩ সাংবাদিকের জামিন

নিউজ ডেক্সঃ
রংপুর সদর উপজেলার এক ইউপি চেয়ারম্যানের অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে (আইসিটি) করা মামলায় মানবকণ্ঠের রংপুর প্রতিনিধি মহিউদ্দিন মখদূমী, দেশ রূপান্তরের রংপুর প্রতিনিধি মামুন রশীদ ও ঢাকা পোস্টের নীলফামারী প্রতিনিধি শরিফুল ইসলামকে জামিন দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) দুপুরে রংপুর সাইবার ট্রাইব্যুনাল (জেলা ও দায়রা জজ) আদালতের বিচারক ড. মো. আব্দুল মজিদ ওই তিন সাংবাদিকের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

জানা গেছে, ২০১৯ সালে ভিজিএফের চাল অন্যত্র সরিয়ে রাখার অভিযোগে সদর উপজেলার সদ্যপুস্করিনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল রানাকে র‍্যাব-১৩ অভিযান চালিয়ে আটক করে। পরে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। ঘটনার কিছুদিন পর ওই মামলায় জামিন পান চেয়ারম্যান। সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে এই চেয়ারম্যান ভিজিডি কার্ড নিয়ে আত্মীয়করণ করে প্রকৃত হতদরিদ্র ও দুস্থদের বঞ্চিত করেন বলেও অভিযোগ ওঠে।

সরকারি সুবিধা বঞ্চিত ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় চেয়ারম্যান ক্ষুব্ধ হয়ে তার প্রভাবশালী এক স্বজনকে দিয়ে গত বছরের ১৬ জুন ওই তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করান। ওই মামলায় গত ১৬ জুলাই তিন সাংবাদিকের নামে আদালত সমন জারি করেন। অথচ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ওঠা অনিয়ম-দুর্নীতির সত্যতা পেয়েছে উপজেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি।

কিন্তু ওই ইউপি চেয়ারম্যানের স্বজন অর্থাৎ মামলার বাদীর অভিযোগ প্রকাশিত সংবাদে ভুল তথ্য ও ছবি প্রকাশ করে সম্মানহানি করা হয়েছে। এ কারণে তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তিনি মামলা দায়ের করেন।

মঙ্গলবার ওই মামলায় দুইপক্ষের আইনজীবীদের শুনানি শেষে আদালতের বিচারক তিন সাংবাদিককে জামিন প্রদান করেন। এ সময় আদালতে বাদী ও বিবাদীপক্ষ উভয়ই উপস্থিত ছিলেন। সাংবাদিকদের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাডভোকেট পলাশ কান্তি নাগ ও অ্যাডভোকেট ফিরোজ কবীর চৌধুরী গুঞ্জন।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

© ২০১০-২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক মায়াবাজার.কম
Developed BY Rafi It Solution