বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০৫ অপরাহ্ন

খবরের শিরোনাম :
বিএনপি’র বিভাগীয় সমাবেশের দু’দিন আগেই রংপুরে পরিবহন ধর্মঘটের ঘোষনা মটর মালিক সমিতি। ধর্মঘট উপেক্ষা করে রংপুরে বিভাগীয় সমাবেশ সফল করার ঘোষনা বিএনপি’র, সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন ব্যবসার পরিবেশ দিয়েছি, আপনারা দেশের কথা ভাবুন— ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ প্রার্থীকে হারিয়ে জাপা নেতা জয়ী হারাগাছে মাদ্রাসার কাজ বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ বহিষ্কৃত সেনা সদস্যের বিরুদ্ধে। সমাধান দিলো পুলিশ, হরিজন সেই কিশোরকে মিষ্টি খাওয়ানো হলো রংপুর সিটি নির্বাচনে মোস্তফাকে জাপার মেয়র প্রার্থী ঘোষণা রংপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র আব্দুর রউফ মানিককে জাপা থেকে অব্যাহতি পছন্দের ছেলেকে বিয়ে করায়, পরিবারের হয়রানি থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন দম্পতি পাগলাপীর বাইক রাইডার্স এর মাধ্যমে নিরাপদ বৃদ্ধাশ্রমে খাবার বিতরণ।
গঙ্গাচড়ায় শিশু শিক্ষার্থীদের দিয়ে শ্রমিকের কাজ করে নেয়ার অভিযোগ

গঙ্গাচড়ায় শিশু শিক্ষার্থীদের দিয়ে শ্রমিকের কাজ করে নেয়ার অভিযোগ

নিউজ ডেক্সঃ
রংপুরের গঙ্গাচড়ায় শিশু শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকের শ্রমিক। ৩য় শ্রেণির দুই শিক্ষার্থীকে দিয়ে বিদ্যালয়ের নতুন দেয়ালে ৩ দিন থেকে পানি দেওয়ার কাজ করাচ্ছেন এক প্রধান শিক্ষক। মঙ্গলবার (৩১ মে) দুপুরে উপজেলার সদর ইউনিয়নের পূর্ব নবনীদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে এমন দৃশ্য দেখা যায়। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন অভিভাবকরা।
জানা যায়, ২০২১-২২ অর্থ বছরে ক্ষুদ্র মেরামতের আওতায় দুই লাখ টাকা বরাদ্দ পায় প্রতিষ্ঠানটি। যার কাজ চলমান রয়েছে। কিছুদিন আগে ওই বিদ্যালয়ের বাউন্ডারি ওয়ালের কিছু অংশ পলেস্তারাসহ ধসে যায়। ফলে নতুন করে ইটের গাঁথুনি দেওয়া হয়। ওই দেয়ালে ৩য় শ্রেণির শিক্ষার্থী হিমায়িত আল হাসান ও তীর্থকে দিয়ে নিয়মিত পানি দেওয়াচ্ছেন প্রধান শিক্ষক বিজয় সরকার।
মঙ্গলবার দুপুরে ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, দুই শিশু শিক্ষার্থী বালতিতে পানি এনে দেয়ালে পানি দিচ্ছেন। এসময় হিমায়িত আল হাসান ও তীর্থ সাংবাদিকদের জানান, প্রধান শিক্ষক স্যারের নির্দেশে তারা পানি দিচ্ছেন। বেলা ১ টা পর্যন্ত তাদের কোনো ক্লাস হয়েছে কিনা তা জানতে চাইলে তারা বলে, এখন পর্যন্ত কোনো ক্লাস হয়নি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক বলেন, আমরা সন্তানকে লেখাপড়ার জন্য স্কুলে পাঠাই, কাজের জন্য নয়। ওই বিদ্যালয়ে ঠিকমতো পাঠদান হয় না বলেও অভিযোগ করেন তারা।
তবে অভিযোগ অস্বীকার করে প্রধান শিক্ষক বিজয় সরকার বলেন, আমি শিক্ষার্থীদের পানি দিতে বলিনি।তারা নিজেরাই পানি দিতে আসে।
বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাগমা সিলভিয়া খানকে অবগত করলে তিনি বলেন, আমি ওই ক্লাস্টারের দায়িত্বে থাকা সহকারী শিক্ষা অফিসারকে দেখতে বলবো।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

© ২০১০-২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক মায়াবাজার.কম
Developed BY Rafi It Solution